হে স্বাধীনতা

কবি: রাজীব চক্রবর্ত্তী

সেই কোন জন্ম মুহূর্তে আমি শুনেছিলাম তোমার আহ্বান।
ছিন্ন করেছিলাম মাতৃ গর্ভের বন্দি দশা।
তুমি আমার যুগ যুগান্তরের
বন্ধন মুক্তির দিশা।

তোমার টানে আমি ছিঁড়ে ফেলতে পারি
এ সমাজ-সংসারের মিথ্যে মায়াজাল,
শান্তির অক্লান্ত পারাবত হয়ে পেরিয়ে যেতে পারি
সাত সমুদ্র তেরো নদীর দুস্তর ব্যবধান।
তোমাকে পাওয়ার আশায় আমি হতে পারি দুর্মদ, দুর্মুখ।
হেলায় সরিয়ে দিতে পারি এ জগত সংসারের যত সুখ।

জীবনের প্রতি ক্ষণে,
প্রতিটি শ্বাস প্রশ্বাসের ওঠা নামায়
আমি চেয়েছি তোমার স্পর্শানুভুতি।
সাজতে চেয়েছি তোমার চেতনার রঙে,
চেয়েছি পেতে তোমায় শৃঙ্খলার ঘেরাটোপে,
মুক্তির আঙিনায়।

কতবার ছুঁয়েছি তোমায় তবু তুমি দাওনি ধরা।
একসাথে হেঁটে গেছি জীবনের বেশ কিছু পথ,
তবু হয়নি তোমায় আপন করে পাওয়া,
তোমার কথা হয়নি যে শোনা।

জীবন সায়াহ্নে তুমি এলে শান্ত ধীর পায়ে,
প্রসাধনহীন অপরূপা।
খোলা আঙিনার মাঝে বসেছিলে আবরনবিহীন।
গোপন কথা চুপি চুপি বলে গেলে কানে –
তোমার রঙে রঙিন হবে সবার মনের ঘর,
তোমার কথা ভাববে সবাই নিজের মত করে।
থাকতে হবে বেঁধে বেঁধে তোমায় নিয়ে ঘিরে।


ছবি: কুন্তল


লেখকের কথা: রাজীব চক্রবর্ত্তী
জন্ম ১৯৭০ সালের ৩০শে ডিসেম্বর, কলকাতার সিঁথিতে। পেশায় কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারী। দৈনন্দিনতার ক্লান্তি কাটাতেই মূলত: কলম ধরা। বেশ কয়েকটি লিট্ল ম্যাগাজিনে লিখেছেন গল্প, কবিতা। ২০১৭ সালে প্রকাশিত “সংশ্লেষ” নামক গদ্য সংকলনে স্থান পেয়েছে তাঁর মুক্তগদ্য। ঐ একই বছরে সোনারপুর কাব্যমঞ্চ আয়োজিত স্বরচিত কবিতা প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান লাভ করেন তিনি। ২০১৯ সালে প্রকাশিত “অন্য গদ্য” গ্রন্থে স্থান পেয়েছে তাঁর গদ্য। জীবনের বিবিধ অনুভূতি, বাস্তবতাকে ছন্দে বাঁধার প্রয়াসে তাঁর কবিতাচর্চা।

শেয়ার করে বন্ধুদেরও পড়ার সুযোগ করে দিন
  •  
  •  
  •  
  •  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।