জামাই রহস্য: জামাই ষষ্ঠী – উৎপত্তি, ইতিহাস ও বিবর্তন

লেখক : রানা চক্রবর্তী

জামাই ষষ্ঠীর দিনটিতে বঙ্গদেশের জননীরা তাঁর চঞ্চল ছেলেমেয়েদের শীতলপাটিতে বসিয়ে শোনাতেন, কী ভাবে মা ষষ্ঠী সমস্ত শিশুদের মঙ্গল করেন, তাদের দীর্ঘ জীবন দেন। তাঁরা কয়েকটি মন্ত্র পড়ে একটা অদ্ভুত দেখতে দূর্বাঘাসের ছোট্ট চামর দিয়ে তাঁর সন্তানদের

গ্রিক পুরাণ ও প্রাচীন গ্রিসের দেবদেবী

লেখক : রানা চক্রবর্তী

জিউস ছিলেন প্রাচীন গ্রিসের দেবদেবীর মধ্যে প্রধান। অলিম্পিয়ার জিউসের মূর্তি টি ছিল পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্যের মধ্যে একটি। গ্রিক স্থপতি ফিডিয়াস খ্রিস্টপূর্ব ৪৩৫ অব্দে মূর্তিটির নক্সা করেছিলেন। যে দ্বীপের উপর মূর্তিটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তার পুরোটা জুড়ে এর

জগন্নাথধামে চৈতন্য মহাপ্রভুর অন্তর্ধান রহস্য – শেষ পর্ব

লেখক : রানা চক্রবর্তী

প্রথম পর্ব

শ্রীচৈতন্যের তিরোধানের স্থান কাল ও ধরন নিয়ে নানান মতের প্রেক্ষিতে একটা সিদ্ধান্ত অবধারিত এসে পড়ে যে, বর্ণনার কোনওটিই সম্পূর্ণ সত্য নয়, কোনও কোনও কথা আংশিক সত্য হলেও হতে পারে। তবে একটা ব্যাপার একেবারে নিশ্চিত, …

জগন্নাথধামে চৈতন্য মহাপ্রভুর অন্তর্ধান রহস্য – ১ম পর্ব

লেখক : রানা চক্রবর্তী

নবদ্বীপের ধামেশ্বর মহাপ্রভু মন্দিরেই নিত্য পূজিত হন বিষ্ণুপ্রিয়াদেবী সেবিত মহাপ্রভুর মূর্তি। কথিত রয়েছে, যে মূর্তি বিষ্ণুপ্রিয়াদেবী নির্মাণ করান চৈতন্যদেবের জীবিত কালেই। সন্ন্যাস গ্রহণের পর চৈতন্যদেবের সঙ্গে বিষ্ণুপ্রিয়াদেবীর আর কখনও দেখা হয়নি। কথিত আছে, বিরহকাতর বিষ্ণুপ্রিয়াদেবী স্বপ্নাদিষ্ট

লিঙ্গরাজ মন্দির নিয়ে জানা অজানা কথা

লেখক : রানা চক্রবর্তী

লিঙ্গরাজ মন্দির উড়িষ্যায় অবস্থিত ভারতের প্রাচীন মন্দির গুলোর মধ্যে অন্যতম। মন্দিরটি শিব এবং বিষ্ণুর মিলিত রূপ হরিহরের নামে উৎসর্গীকৃত।
লিঙ্গরাজ মন্দির ভুবনেশ্বরের সব থেকে বড় মন্দির। কেন্দ্রীয় মিনারটি ১৮০ ফুট উঁচু। মন্দিরটি কলিঙ্গ স্থাপত্যকলা এবং মধ্যযুগীয় …

দেবী তারার উৎস সন্ধানে

লেখক : রানা চক্রবর্তী

তারা বা “আর্যতারা” হলেন মহাযান বৌদ্ধধর্মের একজন নারী বোধিসত্ত্ব, যিনি বজ্রযান বৌদ্ধধর্মে একজন নারী বুদ্ধের মর্যাদা পান। তিব্বতি বৌদ্ধধর্মে তাঁকে “জেতসুন দোলমা” বলা হয়। তিনি “নির্বাণ-জননী” হিসেবে পরিচিত। তারা কাজ ও কীর্তির গুণাবলির সাফল্যের প্রতিনিধি। জাপানে

দেবদাসী – এক ঘৃণ্য প্রথার সংক্ষিপ্ত ইতিবৃত্ত

লেখক : রানা চক্রবর্তী

দেবদাসী কি? মন্দিরের দেবতাকে সন্তুষ্ট করার জন্য এক বিশেষ শ্রেনীর নর্ত্তকী মেয়েদের নিযুক্তি করা হয়েছিল যাদের দেবদাসী বলা হ’ত। দেবদাসী অর্থাৎ দেবতার দাসী। দেবতার প্রসন্নের উদ্দেশ্যে করা দেবদাসীর নৃত্যকে দেবদাসী নৃত্য বলা হয় । কলহেনের রাজতরংগিণী,

মনোরম মধুমাস – এক অনার্য ভূমি কন্যার প্রেম – দ্বিতীয় পর্ব

লেখক : মিত্রা হাজরা

আগের অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

শ্যামলিমায় আচ্ছাদিত এই বনে শত পুষ্পবৃক্ষের সাথে হিংস্র শ্বাপদ ও মনুষ্য ও ছিল। এমন অবস্থায় নরমাংসভোজী হিড়িম্ব দেখতে পেল পঞ্চপান্ডব ও দেবী কুন্তীকে। এতগুলো মানুষ কে ভোজ্য হিসাবে পেয়ে সে …

মনোরম মধুমাস – এক অনার্য ভূমি কন্যার প্রেম – প্রথম পর্ব

লেখক : মিত্রা হাজরা

বসন্ত সমাগমে অরণ্যানী পুষ্পপত্রে অপরূপ আকার প্রাপ্ত হইয়াছে। রাত্রির অপূর্ব এক রূপ আছে, বহুরূপ সুগন্ধ যুক্ত পুষ্প সমূহ শুধু অরণ্যের শোভা বাড়ায়নি, বৃক্ষ কন্টকে আচ্ছাদিত এ বনের পশু পক্ষীকুল ও উৎফুল্ল আজ। কিন্তু সে দিকে দৃষ্টি …

পুজোর কদিন আমরা সবাই ভি.আই. পি

লেখক : অয়ন মৈত্র

আর মাত্র কয়েক ঘন্টা।তারপরই অফিসিয়ালি শেষ হয়ে যাবে দুর্গাপুজো এ বছরের মত।বৃষ্টি পড়েই চলেছে।লো বাজেট প্রতিমার মেক আপ ধুইয়ে, হন্ডা সিভিকের উইন্ড স্ক্রিন বয়ে, রোলের দোকানের পলিথিন চুঁইয়ে বৃষ্টির জলগুলো হাই ড্রেন ভরে দিচ্ছে, ভিখারির ম্যাট্রেস …

ইসলাম ভাগাভাগির সম্পূর্ণ ইতিহাস

লেখক : অভি সেখ

আমার আগের প্রবন্ধ “আমরা কি এখন ভুল ঈশ্বরে বিশ্বাস করছি“তে আমরা জেনেছিলাম কীভাবে পৃথিবীতে প্রথম ধর্মের জন্ম হয়েছিল আর কিভাবে তাদের মধ্যে ভাগাভাগি হয়েছিল আজকের প্রবন্ধে আমরা আলোচনা করব কি ভাবে পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম …

আমরা কি এখন ভুল ঈশ্বরে বিশ্বাস করছি?

লেখক : অভি সেখ

একসময় মানুষ জঙ্গলে বসবাস করত। ধীরে ধীরে বিভিন্ন সভ্যতা গড়ে উঠল আর তার সাথেই ধর্ম। বর্তমানে পৃথিবী জুড়ে অসংখ্য ধর্ম আছে তবে শুরু থেকে এমনটা ছিল না। মানব সভ্যতার বিকাশের সাথে সাথে সেগুলি আপডেট হয়েছে। আজকের …

প্রাচীন কলকাতার দোল উৎসব

লেখক : মিত্রা হাজরা

।।প্রথম ভাগ।।

হোরি খেলিছে শ্রীহরি, সহ রাধা প্যারী কুঙ্কুম ধূম, শ্যাম অঙ্গ ভরি
পুষ্পমালা হিন্দোল সাজায়ে ব্রজনারী রাই-শ্যাম অনুপম, দোলে তদুপরি।

বলেছেন রূপচাঁদ পক্ষী। ফাগুনের আগুন রঙে যখন প্রকৃতি রঙিন হয়ে ওঠে, ঠিক তখন …

Back to Top
error: লেখা নয়, লিঙ্কটি কপি করে শেয়ার করুন। ধন্যবাদ।

বিভিন্ন লেখকের কবিতা গল্প পাঠ শুনতে এখানে ক্লিক করুন

লেখালিখি লোগো